Admission Terms & Conditions

ভর্তির শর্তাবলী:

১. ভর্তির ব্যাপারে বৈধ অভিবাবকের সম্মতি থাকা।
১. রাষ্ট্রদ্রোহী কোন দল বা কর্মকার্ন্ডের সাথে জড়িত থাকা যাবে না।
২. রাজনীতি বা সরকার কতৃর্ক নিষিদ্ধ কোন সংগঠনের সাথে জড়িত থাকা যাবে না।
৩. ফৌজদারী কোন মামলার তালিকাভুক্ত হওয়া যাবে না ।

IOM স্টুডেন্টদের নিয়ম ও কানুন

 

Islamic Online Madrasah(IOM) একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলার স্বার্থে  ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য কিছু নিয়ম শৃঙ্খলা প্রদত্ত হল। এই নিয়মবহির্ভূত কাজগুলো করাটা কোনভাবেই কাম্য নয়। সকল ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি এই নিয়মকানুন গুলো মেনে চলার অনুরোধ করা হল।

 

লাইভ ক্লাশ সংক্রান্তঃ

সকল ভাই-বোনদের জন্যঃ

১. কোনক্রমেই কখনই কারও ভিডিও অন করা যাবে না। 
২. অপ্রয়োজনে মাইক্রোফোন অন করা থেকে বিরত থাকতে হবে।  
৩. কোন বিষয়ে উস্তাদের সাথে মতের মিল না হলে শ্রদ্ধার সাথে তাঁকে সেটা জানাতে হবে। উস্তাদের সাথে এমন কিছু করা যাবে না যাতে করে উস্তাদের সাথে বেয়াদবি হয়ে যায়। উস্তাদকে প্রশ্ন করার সময় যথেষ্ট শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। 
৪.জুম অ্যাপের চ্যাটে অতিরিক্ত কিছু লিখা থেকে বিরত থাকতে হবে। 
৫.নির্দিষ্ট ক্লাসে নির্দিষ্ট বিষয়ের বাইরের কোন বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করা থেকে যথাসম্ভব বিরত থাকতে হবে। আক্বিদার ক্লাসে আক্বিদা নিয়েই প্রশ্ন করতে হবে। ফিকহ ক্লাসে ফিকহ নিয়েই প্রশ্ন করতে হবে। খুব বেশী জরুরী হলে ক্লাসের বিষয় পড়ানোর পর ঐ বিষয়ের প্রশ্ন শেষ হয়ে গেলে উস্তাদের অনুমতি নিয়ে প্রশ্ন করা যেতে পারে। আর যেকোন ফতোয়ার জন্য ifatwa.info এই সাইটে পোষ্ট করলে ইনশাআল্লাহ ২৪-৪৮ ঘন্টার মধ্যে উত্তর পাওয়া যাবে। 
৬.শেষের ১৫ মিনিট বিষয়ভিত্তিক প্রশ্ন করার চেষ্টা করতে হবে। 
৭.উস্তাদ যখন কিছু পড়াবেন বা বলবেন হঠাৎ করে উস্তাদকে বাধা দিয়ে অপ্রাসঙ্গিক কিছু বলে ফেলে উস্তাদের মনোযোগ নষ্ট করা থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করা গেল।  যেকোন বিষয়ে আগে উস্তাদকে শেষ করতে দিয়ে তারপর আপনার বিষয় বলা যেতে পারে। 
৮.কাওকেই আক্রমণ করে কোন কিছু বলা যাবে না। 
৯.জুম অ্যাপে প্রবেশ করার সময় নিজের নাম দেয়া যাবে না। অবশ্যই রোল নম্বর দিতে হবে। রোল নম্বর ছাড়া উপস্থিতি গণ্য করা হবে না। 
১০. যেকোনো সাজেশনের জন্যঃ https://iomedu.org/suggestion/ 
এবং অভিযোগের জন্যঃ https://iomedu.org/complain/ এখানে জানানোর জন্য অনুরোধ করা গেল।

অভিযোগ জানানোর পর অভিযোগের স্ট্যাটাস জানার জন্য: https://iomedu.org/complaint-status/

সকল ভাইদের জন্যঃ

ভাইদের জন্যঃ
১. প্রাইভেটলি কোন বোনকে কোনভাবেই মেসেজ দেয়া যাবে না।
২. মাইক্রোফোনে কথা বলার সময় খেয়াল রাখতে হবে আশে পাশে যেন অবাঞ্চিত কোন আওয়াজ না হয়।
৩.যেহেতু বোনরা কোন ক্লাসেই কথা বলতে পারেন না, তাই ভাইদের খেয়াল রাখতে হবে যেন বোনরা বিরক্ত না হয় বা তাদের কোন সমস্যা না হয় ভাইদের জন্য।
৪. তাজবিদ ক্লাসে, দাওয়াহ ক্লাসে যেখানে উস্তাদের সাথে ভাইদের উচ্চারন করতে হয় চেষ্টা করতে হবে ২/৩ জন যাদের মাইক্রোফোন আছে এবং পাশে কোন নয়েজ নাই উনারাই শুধু মাইক্রোফোন অন রেখে বাকিরা মিউট থেকে উচ্চারন করার।
৪.বোনরা যেহেতু কোন প্রশ্ন সরাসরি করতে পারে না সেক্ষেত্রে অনেক সময় উস্তাদগনও প্রশ্ন হয়তো খেয়াল করতে পারেন না। ভাইরা এই প্রশ্নগুলো প্রশ্নোত্তর পর্বে উস্তাদকে বললে ভাল হয়।

সকল বোনদের জন্যঃ

বোনদের জন্যঃ

১.কম্বাইনড ক্লাসে ভিডিও আর মাইক্রোফোন কোন অবস্থাতেই অন করা যাবে না।শুধুমাত্র বোনদের যে স্পেশাল ক্লাসগুলো হয় সেখানে মাইক্রোফোনে কথা বলবে। 
২.ভাইদেরকে প্রাইভেট কোন মেসেজ দেয়া যাবে না। 
৩. অনেক বোন ভুলবশত মাইক্রোফোন অন করে ফেলেন। অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে অনেকের ভিডিও অন থাকে। এতে করে সব স্টুডেন্ট এবং শিক্ষকও বিব্রত হন। এই বিষয়গুলো বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে।

এজন্য কয়েকটা সতর্কতা অবলম্বন করা যেতে পারেঃ

ক. ক্যমেরার সামনে একটা কাগজ স্কসটেপ অথবা কিছু একটা দিয়ে ঢেকে রাখতে পারেন। যাতে করে ভুলে ভিডিও অন হয়ে গেলেও ভিডিও দেখা না যায়।

খ. কিছু এপস আছে যেগুলো ব্যবহার করলে স্ক্রিন ফিক্সড হয়ে যায়। 
Touch Lock: https://play.google.com/store/apps/details?id=com.kidscrape.king
এই এপ ইন্সটল থাকলে যাস্ট উপর থেকে নিচে টান দিয়ে স্ক্রিন লক করে দিবেন। এবার যতই স্ক্রিন টাচ করা হোক কোন কাজ করবে না। শুধুমাত্র চিন্হিত যায়গায ২/৪/৫ বার ট্যাপ করলে স্ক্রিন আনলক হবে। ক্লাশ করতেও কোন সমস্যা হবে না।

সিস্টার স্পেশাল ক্লাশ ও সিস্টার ডিসকাশন রুমের কিছু নিয়মাবলি

জয়েন করার শর্তাবলী:

১. এই ক্লাশগুলোতে শুধুমাত্র আপুরাই জয়েন করবেন।

২. ক্লাশের লিঙ্ক এবং আইডি অন্য লিঙ্ক থেকে আলাদা। এই লিঙ্কগুলো বা আইডি সর্বোচ্চ প্রাইভেসী বজায় রাখার চেষ্টা করতে হবে। এই লিঙ্কগুলো কারও সাথে শেয়ার করা যাবে না।

৩. এই ক্লাশগুলোতে বোনরাও তাদের প্রশ্ন সরাসরি ভয়েসের মাধ্যমে করতে পারবেন।

৪. কোনো ক্রমেই কারও ভিডিও অন করা যাবে না। কেননা ভুল ক্রমে কারও হাজবেন্ড অথবা মাহরাম চলে আসলেও যাতে পর্দার সমস্যা না হয়।

৪. ক্লাশের সময় যাতে কম্পিউটারের সামনে কোন পুরুষ মানুষ না বসে এটা সম্পূর্ন স্টিক্টলি মেইনটেইন করতে হবে।

৫. আপনার মাহরাম পুরুষও যাতে কেউ ক্লাশের সামনে না বসে। কারন আপনার মাহরাম হলেও যিনি ক্লাশ নিচ্ছেন তার জন্য নন মাহরাম।

আর উপরোক্ত বিষয়গুলো নিজ জিম্মাদারীতে আল্লাহর জন্য স্ট্রিকলি ফলো করার জন্য অনুরোধ করা গেল।

ডিসকাশন রুম এর নিয়মাবলি:

১. প্রতিদিনি দুইটা/তিনটা ক্লাশের আলোচনা হবে।

২. প্রতিটা সাবজেক্টের জন্য স্টুডেন্টদের মধ্যে থেকেই একজনকে ওস্তাদ হিসেবে নির্বাচন করে ক্লাশ শুরু করতে হবে। যদি ২ টা সাবজেক্টের আলোচনা হয় তবে দুইজন বোন ওস্তাদ হিসেবে থেকে বাকিদের সাহায্য করবেন। সবাই সমানভাবে ক্লাশে অংশগ্রহণ করবেন তবে ওস্তাদদের দায়িত্ব ক্লাশের টাইম, টপিকস ইত্যাদি মেইনটেইন করা। যারা ওস্তাদ হিসেবে থাকবেন তাদের জিম্মাদারী ক্লাশে যাতে সবাই উপকৃত হয়, শিখতে পারে এবং সময়টা কাজে লাগে এ বিষয়ে আল্লাহর জন্যই খেয়াল রাখা।

তাজবীদের ক্ষেত্রে যারা পরীক্ষাগুলোতে সর্বোচ্চ মার্কস পেয়েছেন তারা উপস্থিত থাকলেই তারাই ওস্থাদ হিসেবে থাকার চেষ্টা করা।

৩. প্রতিদিনের শুরুতে সবার ঈমানী খোজ-খবর নেওয়ার মাধ্যমে ক্লাশ শুরু হবে। যেমন কার কার তাহাজ্জুদ হচ্ছে। কারও নামাজ ছুটছে কিনা। কার কয় পারা কোরআন শরীফ পড়া হল ইত্যাদি।

৪. প্রতিদিন শেষে পরবর্তী দিন কোন কোন ক্লাশ হবে ঐ ক্লাশে কে কে ওস্তাদ হিসেবে থাকবেন এটা সবার মতামতের মাধ্যমে ঠিক করা। প্রতিদিন ওস্তাদ পরিবর্তন হলেই ভাল। কোন একজনের উপর চাপিয়ে না দেওয়া।

৫. আলোচনার ক্ষেত্রে কোন মাযহাব বা মানহাজ নিয়ে আলোচনা করা যাবে না। সব মাযহাবই কিংবা মানহাজই আলহামদুলিল্লাহ ঠিক আছে। তবে আমাদের স্টুডেন্টদের ৯৫% যেহেতু হানাফী মাযহাবের তাই নামাজ বা অন্য বিষয় নিয়ে আলোচনা হলে হানাফী ফিকের নিয়মটা আলোচনা করতে হবে এবং বলে দিতে হবে অন্যান্য নিয়ম যারা ফলো করছেন তাদেরটাও ঠিক আছে। কারন IOM এর উদ্দেশ্য কোন মানহায বা মাজহাবকে প্রতিষ্ঠিত করা নয় বরং সবাইকে দায়ী এবং ঈমানওয়ালা বানান।

ফেসবুক গ্রুপ এবং গ্রুপ চ্যাটিং সংক্রান্ত:

ফেসবুক গ্রুপে পোষ্ট এবং চ্যাটিং সংক্রান্ত:

IOM একটি পরিবার। আর আমরা সবাই এই পরিবারের সদস্যা। অন্যান্য দুনিয়াবী গ্রুপ গুলোতে একত্রিত হওয়ার ভিতরে কোন না কোন দুনিয়াবি স্বার্থ থাকে। কিন্তু এই গ্রুপে জয়েন করা দ্বীন শিক্ষা ও আল্লাহকে খুশি করার জন্য। এই গ্রুপে শুধু স্টুডেন্টরাই জয়েন করতে পারবেন। ইনশাআল্লাহ যদি আল্লাহ রাখেন, আমরা আমাদের শেষদিন পর্যন্ত গ্রুপে থাকার আশা রাখছি।
পড়াশুনা, হ্যান্ডনোট শেয়ার করার পাশাপাশি এই গ্রুপের সদস্য হিসেবে আরও কিছু বিষয় আমরা গ্রুপে আশা করছি।
আজকে আমাদের সমাজ থেকে দ্বীনের প্রাকটিস একেবারে উঠে গেছে বললেই চলে। আমাদের সমাজে আজ একটা বিয়েতে একদিনে যে পরিমান পাপ হয় মনে হয় ওই এলাকায় সারা মাসের সবারও পাপের থেকেও বেশি। আজকে মৃত্যু হয়েছে রিইউনিয়ন। আজকে কেউ মারা গেলে তার দেশ বিদেশের আত্মীয় স্বজন জড় হয়। আর সাক্ষাতে মৃত ব্যাক্তির জন্য দোয়া তেলাওয়াত বাদ দিয়ে এতদিন পর সবার সাথে দেখা হওয়া ফিলিংস শেয়ার হতে থাকে।
এই বিষয়গুলো বিবেচনায় আমরা চাচ্ছি রাসূল সঃ তার সাহাবা রাঃ জন্ম, মৃত্যু, বিয়ে সব বিষয়েই একে অপরের পাশে দাড়াতেন। আমরাও IOM থেকে তেমনটাই আশা করছি।

১। আমাদের কারও বেবি জন্ম গ্রহণ করলে, ক্লাশেই ইনশাআল্লাহ সবাই তার জন্য দোয়া করবেন। আগত সন্তান যাতে সারা দুনিয়ার দ্বীনের দায়ী হতে পারেন এ বিষয় নিয়ে।
২। আমাদের অনেকেই বিবাহের ক্ষেত্রে দ্বীনদার পাত্র/পাত্রী খুজেন। সেক্ষেত্রে আমাদের এই প্লাটফর্মে মোটামুটি সবার ভিতরেই দ্বীনের আগ্রহ রয়েছে বিধায়ই আমরা একত্রিত হয়েছি। আর এক্ষত্রে যেসব ভাই বোনেরা দ্বীনদার পাত্র/পাত্রী খুজছেন তাদের সিভি কালেক্ট করার একটা গোপনীয় ব্যবস্থা ওয়েবসাইটে করা হয়েছে । আর পাত্র/ পাত্রীর চাহিদা যদি মিলে যায় সেক্ষেত্রে পাত্রীর মাহরাম অভিবাবকের সাথে পাত্রের অবিভাবকের যোগাযোগের ব্যবস্থা করিয়ে দেওয়া হবে ইনশাল্লাহ। এটাও সম্পূর্ন আল্লাহর জন্য।
আর এটা শুধু এডমিনের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এ জন্য আমাদের এমন একজন হাজবেন্ড ওয়াইফ দরকার যাদের দুইজনই ভর্তি হয়েছেন। দুইজন দুই গ্রুপে আছেন।
রাসূল সাল্লাাহু আলাইহি ওয়া সালাম ইরশাদ করেছেন ঃ
কোন বান্দা যখন বিয়ে করলো, তখন সে তো দ্বীনের অর্ধেকটা পূর্ণ করে ফেললো। অতঃপর সে যেন অবশিষ্ট অর্ধেকের ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় করে।
আর এ ব্যাপারে যে শুধু আল্লাহর জন্যই সহায়তা করবে আল্লাহ অবশ্যই এর বদলা দিবেন।

৩। আমাদের কারও বাবা-মা অথবা হাজবেন্ড অথবা ওয়াইফ এর মধ্যে কেউ যদি মৃত্যু বরণ করেন তবে আমাদের গ্রুপে জানালে ঐ দিনের ক্লাশে ইনশাআল্লাহ শিক্ষককে জানিয়ে দেওয়া হবে। ইনশাআল্লাহ শিক্ষক অফলাইন মাদ্রাসায় এবং IOM এর সব স্টুডেন্টদের নিয়ে তার মাগফেরাতের জন্য দোয়া করবেন।

৪। আর আমাদের ভিতর থেকে কোন স্টুডেন্ট আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে চলে গেলে আমাদের জানানো হলে আমরা ইনশাআল্লাহ কয়েকটি কাজ করবঃ
ক। তার যেখানে জানাজা হবে আমরা উক্ত স্থান এবং সময় অফিশায়ালি এনাউন্স করা হবে। নিকটস্থ স্টুডেন্টরা জানাযায় শরীক হবেন ইনশাআল্লাহ ।
খ। মৃত ভাই/ বোনের মাগফেরাতের জন্য শিক্ষরাই ইনশাআল্লাহ ক্লাশে এসাইনমেন্ট দিবেন সবাইকে কমপক্ষে একবার হলেও সূরা ইয়াসিন পড়ার জন্য। সবার পড়া শেষ হলে দোয়াও করা হবে ইনশাআল্লাহ ।
কেননা আল্লাহ চাইলে হয়ত কয়েক বৎসরের ভিতর বিভিন্ন ব্যাচ মিলে কয়েক হাজার স্টুডেন্ট হয়ে যাবে। আর আমার মাগফেরাতের জন্য এতলোক আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করলে আল্লাহ ইনশাআল্লাহ আমাদের মাফ করে দিবেন।
আল্লাহ সব স্টুডেন্ট, টিচার, এডমিন সবার মনের নেক নিয়তগুলোকে কবুল করুন…

১. রাজনৈতিক পোষ্টঃ 
গ্রুপে বা চ্যাটিং এ কখনই রাজনৈতিক কোন পোষ্ট দেওয়া যাবে না। ভিন্ন ভিন্ন স্টডেন্ট বিভিন্ন রাজনৈতিক মতাদর্শের থাকবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সবাইকে আমার মতাদর্শের সাথে একমত করার কোন প্রয়োজন নেই।
২. ধর্মীয় বিতর্কিত পোষ্টঃ
 
ধর্মীয় বিতর্ক সৃষ্টি করতে পারতে পারে এমন কোন বিতর্কিত পোষ্ট দেওয়া বা শেয়ার করা যাবে না। শুধু উৎসাহ মূলক পোষ্ট দেওয়া যেতে পারে।
৩. মাযহাবের বিতর্কঃ 
IOM সব সময় সকল মাযহাব বা মানহাজের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। মাযহাব নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি করে এমন কোন পোষ্ট দেওয়া বা আলোচনা করা যাবে না। পক্ষেও না বিপক্ষে না।  IOM বিশ্বাস করে সকল মাযহাব মানহায সবগুলোই সঠিক। অন্যদিকে মাযহাবগত পার্থক্য অধিকাংশ ক্ষেত্রেই শুধুমাত্র নফলের মধ্যে সীমাবদ্ধ। বাকি ফরজ নিয়ে কারও কোন মতপার্থক্য নেই। তাই নফল নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করার কোন অবকাশ নেই। 
৪. বিদ্বেষ পোষনঃ
ব্যাক্তিগতভাবে কোন একজন আলেম অথবা স্কলারকে আমার ভাল নাও লাগতে পারে। কিন্তু এখানে কাউকে কটাক্ষ করে পোষ্ট দেওয়া বা পোষ্ট শেয়ার করা সম্পূর্ন নিষিদ্ধ।
৫. দান সংগ্রহঃ
কোন প্রতিষ্ঠান বা ব্যাক্তির জন্য অর্থসংগ্রহের জন্য কোন ধরনের পোষ্ট বা চ্যাটিং দিতে হলে অবশ্যই এডমিনের অনুমতি সাপেক্ষে দিতে পারবে।  এডমিনের অনুমতি ব্যাতিত কোন ধরনের দান সংগ্রহ সম্পূর্ন নিষিদ্ধ।  

চ্যাটিং সংক্রান্ত কিছু বিশেষ সতর্কতাঃ

১. সময় নষ্ট করাঃ
অযতা চ্যাটিং এর মাধ্যমে সময় নষ্ট না করার জন্য অনুরোধ করা গেল। শুধুমাত্র মাদ্রাসা পড়াশুনা সংক্রান্ত অথবা প্রয়োজনীয় বিষয় নিয়েই আলোচনা করা যেতে পারে। মনে রাখা দরকার চ্যাটিং মাদ্রাসা পড়াশোনার কোন অংশ নয়। বরং যেকোন অফিশিয়াল নোটিশ গ্রুপে পোষ্ট আকাদের দেওয়া হবে। 
২. চ্যাটিংয়ের সময়ঃ
চ্যাটিং সর্বোচ্চ সময় সকাল ১০ টা থেকে রাত ১১ টার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখা। কেননা রাত ১২ পর চ্যাটিংয়ের কারনে কারও তাহাজ্জুদ মিস কিংবা ফজর নষ্ট হয়ে গেলে এটা গুনাহের কারনে পরিনত হবে। 
৩. পরিবারকে সময় দেওয়াঃ  
অযথা চ্যাটিং এ সময় নষ্ট না করে বেশি সময় পরিবার ও বাচ্চাদেরকে দেওয়ার অনুরোধ করা গেল। কেননা ক্লাশের সময়গুলোই মাদ্রাসার সময়। ক্লাশ বাদে অন্য চ্যাটিংয়ের সময়গুলো মাদ্রাসার সময় নয়।  
৪. চ্যাট নোটিফিকেশন অফ রাখাঃ  
অন্যদের চ্যাটিং এর ফলে সারাদিন নোটিফেকশন আশা বিরক্তের কারন হওয়াটাই স্বাভাবিক। তাই নিম্নোক্ত নিয়ম অনুসরন করে চ্যাট নোটিফিকেশন অফ করে রাখার জন্য অনুরোধ করা গেল।  https://youtu.be/XYFcP_gv_ao
৫. ক্লাশ চলাকালীন চ্যাটিং অফ রাখাঃ   
ক্লাশ চলাকালীন সময়ে চ্যাটিং না করার জন্য অনুরোধ করা গেল।